Subscribe To The Perspectives

Friday, December 18, 2015

An Exclusive Interview With Amarendra Chakravorty : National Award Winning Author And Editor in Chief of India's Best Read Travel Magazine Bhraman

A few days ago,I got a chance to interview the National Award Winning Author in Children's Literature and the Editor of India's most popular and most read travel magazine 'Bhraman'.'Bhraman' literally means travel and the magazine,all aided with its luscious and narrative writing and delicious photographs and diversity make it a real treat to the readers!
I am so grateful to the author for letting me have this wonderful opportunity and I am now so excited and glad to post this!
Since he is connected to mainly Bengali Literature,to make this more relevant,I have posted the Bengali version of the interview.Hope that you are going to like this.





(Photograph Source : Bhraman Magazine)



(Photograph Source : Bhraman Magazine)



Bengali Version/বাংলা সংস্করণ 



  • প্রশ্ন ঃ প্রথম প্রশ্ন ভ্রমণ পত্রিকাটি নিয়ে। হঠাৎ ভ্রমণ বিষয়টি নিয়ে কাজ করতে চাইলেন কেন?


অমরেন্দ্র চক্রবর্তী :হঠাৎ? কিশোর বয়স থেকে নিজেদের বাড়ি থেকে গ্রাম থেকে বেরিয়ে পড়ে দূর দূর দেশের প্রকৃতি আর অচেনা মানুষদের কাছে যেতে ইচ্ছে করত।
 ছোটবেলায় একদিন নৌকো চড়ে সমুদ্রপথে পৃথিবী দেখতে আমার বেরিয়ে বেশ কয়েকবার ভ্রমণে গেছিলাম...ছেলেবেলা পত্রিকায় বা আর কোথাও লিখেছি। কোথাও পেলে পড়ে নিয়ো। তোমার প্রশ্নের উত্তর পাবে। বহু জায়গায় এই প্রশ্ন শুনতে শুনতে এ বিষয়ে আর বলতে ইচ্ছে করেনা।


  •   প্রশ্ন ঃ আপনি বলছেন, যে আপনি বর্ণ ট্র্যাভেলার? কিন্তু আপনি তো এক এ সাথে সাহিত্যিক,কবি,ডিরেকটর,ফটোগ্রাফার। এত কিছু সামলান কি ভাবে?


 অমরেন্দ্র চক্রবর্তী : বর্ণ ট্রাভেলার আবার হয় নাকি কেউ? নিজের নাগালে ও চারপাশে যেটুকু দেখা জায়,সব মানুষেরই তো তার বাইরে দেখতে,জানতে ইচ্ছে করে। আমি হয়ত ছোটবেলা থেকে মনে মনে একই  সঙ্গে একটু বেশি আলমুখি তরঙ্গসংকুল  বলে মনে যখন  যা তাড়া করে,তখনি তাতে ঝাঁপ দিই। তাই ১৩-১৪ বছর বয়সে শেষ রাতে ব্যর্থ সমুদ্র অভিযানে বেরিয়ে পড়েছিলাম।আরও কি কি যেন বললে,নিজের বিষয়ে আমার এতসব ধারণা নেই,তবে দু-একটা যদি সত্যিই করে বা হয়ে থাকি,সেগুলোও ওই একই ভাবে ঘটেছে হয়ত - বেখেয়ালে ঝাঁপ দেওয়া।


  • প্রশ্ন ঃ আপনি তো পৃথিবীর অনেকটাই ঘুরে দেখেছেন। এত বিচিত্রময় ভ্রমণের মধ্যেও কি কোনো  ফাঁক থেকে যায়? নাকি সবটাই ম্যাজিক,সবটাই সৌন্দর্য ?


অমরেন্দ্র চক্রবর্তী :ছোটদের কি এত সব গোপন  কথা বলতে দেওয়া উচিৎ? তোমার তো কাজেও লাগবেনা।


  • প্রশ্ন ঃ এটা গোপন কথা বুঝি? কাজে লাগা - মানে সবকিছু তো বস্তুবাদের অন্তর্গত নয়। আমরা যদি সব কিছুর ক্ষেত্রে কাজে লাগা বা না লাগার বিষয়টা বিচার করতে বসি,জীবনে সৌন্দর্য বলে কিছু থাকবে না। আপনি বললে ভালো লাগত,তবে যদি আনিচ্ছুক হয়ে থাকেন,তাহলে কোনো প্রয়োজন নেই।


অমরেন্দ্র চক্রবর্তী :অচেনা দেশ দেখে বেড়ানো,অচেনা মানুষ চিনে বেড়ানো - এর কি কোনো শেষ আছে? এ তো সব সময়েই অসম্পূর্ণ। যতই দেখবে ততই মনে হবে আরো বেশি বাকি রয়ে গেল। বিশ্বের জন্য এরকম বিরহের বধ...এই বিরহ আমাকে ব্যাকুল করে।

বাপরে, তোমরা ছোটরা এখন কত ভারি ভারি বিষয় জানো! আমি তো এই সেদিনও,বাংলার মাঠে সন্ধ্যের ঠিক আগে দুঃখের গন্ধ পেয়েছি। ওটা যে  ছাতিম ফুলের গন্ধ,তা জানতে আমার অর্ধেক জীবন লেগেছে...


  •  প্রশ্ন ঃ হেমন্তের বিকেলের নিভে আসা আলো দেখলে মন খারাপ হয় কিন্তু। আর কারণও বোঝা যায় না ঠিক করে...


এই উত্তরটা খুব সুন্দর। আমি জানি এখনও পর্যন্ত প্রায় সব প্রশ্নই আমি কোনো না কোনো ভাবে ভ্রমণ বিষয়টি নিয়ে করেছি। সাহিত্যে আসা যাক। হিরু ডাকাত বইটা নিয়ে একটা প্রশ্ন না করে পারছিনা। বইটা জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত। আর রবিনহুড পড়ে যে থ্রিল,যে দুঃখ,যে আনন্দ পাওয়া যায়,সবটাই উপভোগ
করা যায় এই বইটি পড়েও। যেন বাংলার রবিনহুড। হঠাৎ এই বিষয়ে বই লিখলেন কেন?

অমরেন্দ্র চক্রবর্তী :বিষয় ভেবে বই (ফিকশান) লেখা যায় কি না জানি না তো...। হঠাৎ না,আমি প্রথমে ছোটদের একটি পত্রিকায় হিরু ডাকাতের যে গানটি আছে, ওটাই একটা কবিতা হিসেবে লিখেছিলাম। কবিতাটার নাম রেখেছিলাম 'দিলু ডাকাত'। শুনলেই কেমন মনে হত খুব বড় হৃদয় আছে যার।তারপর অনেক দিন ধরে চারপাশের মানুষের দুঃখ দুর্দশা, অন্যায়,অবিচার নিষ্ঠূর নির্যাতন আমার মনে...আমার মনে দানা বাঁধতে বাঁধতে সেখানে হিরুর জন্ম নিল। তারপর তো হিরুই আমাকে দিয়ে তাঁর কথা লিখিয়ে নিল।
'সাদা ঘোড়া' - তেও চারপাশের মানুষের জীবন আমার মনে বাঁসা বেঁধে গল্পটা আমাকে দিয়ে লিখিয়ে নিলো।


  • প্রশ্ন ঃ সাহিত্যিকরা আসলে দার্শনিক। তারা অনেক দূর দেখতে পায়। ভারতবর্ষে,বা সারা পৃথিবীতেই এখন যে অবিচার এবং নিষ্ঠূর নির্যাতন চলছে, আপনার মতে এই অন্ধকার থেকে মুক্তির পথ কথায়? সেরকম কোন পথ কি আপনি দেখতে পান?


অমরেন্দ্র চক্রবর্তী :কবি -শিল্পী সাহিত্যিকের জীবন-নিংড়ানো সৃষ্টির আলোয়
মানুষের মনের অন্ধকার দূর করার নিরন্তর চেষ্টা হয়তো একটা পথ।সে পথ দেখতে পাওয়া কারো একার বা কোনো এক যুগের কাজ নয়। এইসব বিষয়ে এরকম টেলিগ্রামের ভাষায় বলতে নেই।

জীবন তো শুধু নিজের মনে আলো জ্বালানো না, সে সাধনা তো আজীবনেরই সাধনা। সেই সঙ্গে  চারপাশের মানুষের মনেও আলো ধরানর মত সৃষ্টি কাজেও যদি মগ্ন হতে পারি সেটা এলতা বড় শান্তি। অনেক দিন ধরে আমার মনে হচ্ছে  - যার মনে জত আলো আসে, তার মন তত ভালবাসে। আর এই সর্বজনীন ভালোবাসার মধ্যে দিয়েই হয়ত একদিন বিশ্বময় অশান্তির আক্রমনকে যুদ্ধে হারিয়ে দেওয়া যাবে। এ বিষয়ে তুমি তোমার মত করে ভাবো।

আমাকেও এবার কাজে লাগতে হবে। ছবি আঁকায় ফিরতে হবে। আর কয়েক মিনিট চাও তো দিতে পারি।


  • প্রশ্ন ঃ অবশ্যই। শেষ প্রশ্ন করি তাহলে। আপনি নিজেকে কিভাবে দেখতে পছন্দ করেন? একজন চিত্রশিল্পী হিসেবে? না একজন সাহিত্যিক হিসেবে? নাকি পথিক হিসেবে?


অমরেন্দ্র চক্রবর্তী :সবকটাই, অথবা হয়ত কোনটাই না...


  • প্রশ্ন ঃ এই সাক্ষাৎকারটি দেওয়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আমি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ এটা গ্রহণ করার সুযোগ পেয়ে।


অমরেন্দ্র চক্রবর্তী :ভালো লাগলো তোমার সঙ্গে আড্ডা দিয়ে। কোন প্রশ্ন মাথায় এলে পরে কোনদিন জিজ্ঞাসা করতেই পারো ।


(Photograph Source : Bhraman Magazine) 
English Version

  • The first question is about India's best read travel magazine,'Bhromon'. Why did you even think of such a venture? It was not predominantly existent in people's minds in this country as much as it is in the Western world or in other parts of Asia.


Well,as a teenager,I was always interested to see what I couldn't find in my immediate surroundings.I loved to imagine meeting new people,travelling to unknown places,and I was experiencing new found joy and freedom in the imagination itself.When I was a little kid,I settled out to travel the sea in a boat...I have written about this somehwere in 'Chhelebela' magazine.You could get a read if you wish to.I am actually bored of this question,a lot of people ask this same thing.


  • So,you were born with the traveller instinct? But you are a director,an author,a photographer and a painter,too! How do you manage all of these things together?This is amazing,indeed.


Is anyone ever born a traveller? I am not sure. I had an urge. To see what lies outside.That is what lets you see what lies inside.I wanted to get across limits,erase demarcation lines and this was all because of that urge. 
I was imaginative,so I just let my mind draw all that it could from this gift and I just let myself get indulged into it.That was how it happened.



  • You have travelled a lot around the world.What is it all about?Is it only about beauty and magic? Or is there still a convincing gap that exists,keeps on existing?
Should children be told all the secrets?




  • Is this a secret,after all?The core of everything isn't existent in materialism itself.It is going beyond limits,may be.If we keep judging benefits from everything around us,they will loose their beauty,rather our eyes will forget to recognise beauty.It would have been a pleasure to hear you answer this but if you want to skip this,there is obviously no compulsion.

Uh - this entire thing is absolutely endless.You cannot reach the end,ever.The more you see it,the more you intensify your urge to see it further.But you never know what,how much further is,how far it really goes.The stretches are infinite.That is the gap. It is all about the mystery of this gap,you know.

Children know things so deep and heavy today! I was sitting on a field,near White Cheesewood trees in an evening in late autumn and the essence was convincingly that of sorrow.It took me half a lifetime to realise that it was White Cheesewood blossoms,after all...

  • Autumn evenings brings into the mind a strange hollowness,everytime.And it is nearly impossible to understand it.I loved this answer.I have been asking nearly everything related to travel until now. But there are more questions to be asked.Let's come to literature.I can't do but ask you about 'Hiru Dakat'.You get to experience the same thrill,awe,laughters and tears when you go through 'Hiru Fakat' just like you do when you're going through Robin Hood.Why did you write about him at the first place? 
I do not know if you can write fiction after analysing why you are writing it.It wasn't an all of a sudden incicent.I had written a poem called 'Dilu Dakat' (Dil meaning 'heart' and dakat meaning 'dacoit') in a children's magazine once.This was the same song that was included in the book 'Hiru Dakat'.Many,many days later,when all the sufferings,all the pain,all the wrongs happening around me were crowding my mind,he began insisting me to write his story.He is the one who got me to write this! 
Even while writing 'Sada Ghora' (Or The White Horse),it was the pain that I could feel through me,the pain that penetrated through humanity around the world.



  •  Every literateur is a philosopher somewhere inside. They can see what is to happen in the near or even at the furthest ends of the 'future' that exists in us. Owing to all the terrible wrongs that are happening in the world right now,can you figure out a way to illumination?Can you see where this leads to?
Maybe the poets and authors all create whatever they create to illuminate,in the end.In the end that we know as,you know the conventional end. May be this illumination is the path through the darkness.May be this drives away darkness and lets us see through.
It is quite uninteresting to talk in so short about such a large issue. I think the dedication that you use to create something creative is all that lights up your mind.The more light you have,the more you can love.May be this love is what,after all,will win over war one day...This universal love is what we need.



  • Let me ask you the last question,then.How do you perceive yourself?As an author,a painter,a poet,a philosopher or a traveller,after all?


Either I am each one of these,or I am a big nothing-at-all.


  • Thank You so much for lending me this much of your precious time.I am really grateful to have conducted this interview.Thanks again.

Sure. You can ask me questions whenever you have them in the coming days.Greetings to you.


Share this PostPin ThisShare on TumblrShare on Google PlusEmail This

No comments:

Post a Comment

What are your perspectives?

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...

Click to get your copy of 'The Big Question Manifesto'!

Got A Doubt? Or A Suggestion?Talk To Us!

Name

Email *

Message *